স্টাফ রিপোর্টার ঃ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ৩ ফসলি জমি ভরাট করছে জমি খেকোরা। এতে হুমকীর মুখে পরেছে কোটি টাকার সরকারি রাস্তা। উপজেলার রশুনিয়া ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের শংকর ডাক্তার এর বাড়ি সংলগ্ন এ ভরাটের কাজ চলছে। কোন প্রকার নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই চলছে এসব ফসলি জমি ভরাট বানিজ্য। রাস্তার বিভিন্ন স্থানে বালু পরার কারনে যাতায়াতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে জনসাধারন।

সরোজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার রশুনিয়া ইউনিয়নের তাজপুর মৌজাস্থিত শংকর ডাক্তার এর বাড়ী সংলগ্ন প্রায় দের একর ফসলি জমি ভরাট করছেন বালু ঠিকাদার শাজাহান। উপজেলার বিভিন্ন স্থান হতে ড্রাম ট্রাকের মাধ্যমে বালু দিয়ে ফসলি জমি ভরাটের কারনে বীরতারা হতে সিরাজদিখান উপজেলা যাতায়াতের প্রধান সড়কটি পরেছে ব্যাপক হুমকির মুখে। ড্রাম ট্রাক করে আনা বালু রাস্তার উপরে বিভিন্ন স্থানে পরে থাকার কারনে ইজিবাইক ও মটরসাইকেলে ঘটতে পারে যে কোন ছোট বড় দুর্ঘটনা। এছাড়া জনসাধারণ ভোগান্তিতে আছেন। তবে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কেউ কোন ব্যাবস্থা নিচ্ছেন না বলে তারা জানান।

এবিষয় ঠিকাদার শাজাহান বেপারীর কাছে জমির মালিকের মোবাইল নাম্বার চাইলে তিনি বলেন, আমার কাছে তার নাম্বার নাই, এ বিষয়টি ভুমি কর্মকর্তা জানে এবং ভুমি কর্মকর্তা থেকে অনুমতি আনা হয়েছে। এ বিষয়ে আরও কিছু জানতে চাইলে ভুমি অফিসে যোগাযোগ করেন তাদের কাছে মোবাইল নাম্বার আছে ।

এ বিষয়ে রশুনিয়া ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর সোলাইমান জানান, আমি তো শ্রেনি পরিবর্তন এর অনুমতি দেয়ার এখতিয়ার রাখি না। আর আমি কোন প্রকার শ্রেণি পরিবর্তনের অনুমতি দেই নাই । আমি কিছু দিন আগে বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের নিষেধ করে এসেছি । #