শ্রীনগর(মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ভূমিদস্যুদের তথ্য প্রকাশ করলে সাংবাদিকদের শিকড় তুলে ফেলাবে বলে সাংবাদিককে হুমকি দিয়েছে মানিক মোড়ল নামে এক ভুমিদস্যু। গেল বরিবার(৯ জানুয়ারী) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার হাসাড়া ইউনিয়নের হাসাড়া ফিলিং স্টেশনের পাশে চায়ের দোকানের সামনে এ হুমকির ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলার প্রেসক্লাবের সাংবাদিক ফরহাদ হোসেন জনি বাদী হয়ে ভুমিদস্যু মানিক মোড়লকে বিবাদী করে থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেন।
জানা যায়, উপজেলার হাসাড়া চৌধুরী রোড সংলগ্ন নাল জমির মাটি সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে কোটি কোটি টাকার মাটি বিক্রি করার ফলে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে ব্যাপক ঝুকির মধ্যে রয়েছে। জমির মধ্যস্থানে বিদ্যুতিক খুটি হেলে আছে যে কোন সময় ধসে পরে বড় ধরনের র্দুঘটনার ঘটনার সম্ভবনা রয়েছে। মাটি কেটে প্রায় ৮/১০ ফুট গভীর করার পর এখান হতেই বালু উত্তোলন করা হচ্ছে এমন তথ্য পেয়ে শ্রীনগর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিক দৈনিক বাংলাদেশ কন্ঠ প্রতিনিধি ফরহাদ জনি বিষয়টি জানার জন্য ঘটনার দিন হাসাড়া গ্রামের মৃত সোবহান মোড়লে ছেলে শীর্ষ ভূমিদস্যু মানিক মোড়ল ওরফে চোরা মানিক এর বক্তব্য গ্রহনের জন্য তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিকদের হাসাড়া র্ফিলিং স্টেশনে আসতে বলেন, সেখানে পৌছলে সে নিজের হাত অনেক বড় আস্ফালন দেখিয়ে বলেন, আমি মাটি, বালু সব তুলবো আপনাদের কি, আমাকে চিনেন? আমার বিরুদ্ধে লিখবেন, লিখেন, লিখলে সাংবাদিকদের শিকড়সহ তুলে ফেলবো। বাড়ি হতে তুলে নিয়ে আসবো। আমার সম্পর্কে আপনাদের ধারণা নেই, আমি মুন্সিগঞ্জ আদালতের এজলাসে দাড়িয়ে ম্যাজিষ্টেটকে বলে মামলা খালাশ করাই। আমার সম্পর্কে ভালো করে জেনে নিন, আপনাদের সাহস কত বড় আমি মাটি বিক্রি করছি এই খবর নিতে এসেছেন, আমি সেনাবাহিনীকে মাটি দেই, তারাই এখানে আমাকে খনন করে বালু তুলতে বলেছেন। এ সময় কোন কর্মকর্তা আপনাকে মাটি কাটতে বলেছেন জানতে চাইলে কয়েক জনের নাম বলেন। তাদের মোবাইল নাম্বার চাইলে দিতে রাজি হননি। এক পর্যায়ে তিনি সাংবাদিককে মারতে তেরে আসলে সাথে থাকা অন্যান্য সাংবাদিকরা এগিয়ে তাকে রক্ষা করে।
এব্যাপারে শ্রীনগর থানার ডিউটি অফিসার উপ-পুলিশ পরিদর্শনক(এস/আই) তন্ময় মন্ডল বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। ওসি সাহেবের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নিচ্ছি।