তিতাস উপজেলার মাছিমপুর গ্রামের কৃষক ওয়ালিদ মিয়া সূর্যমুখি ফুলের চাষ করে বেশ আলোড়ন তুলেছেন। তিনি প্রায় ১০০ শতক জমিতে চাষ করেছেন সূর্যমুখীর। ফুলে ফুলে ভরে গেছে সেই জমি। সেখানেই সেলফি তোলার ঝড়। সড়কের পাশে সূর্যমুখী চাষ করায় সেই দৃষ্টিকাড়া ফুলের মধ্যে কেউবা সেলফি, কেউবা স্বজন নিয়ে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ছবি তুলতে ভিড় করছে সব বয়সের নারী পুরুষ। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ পরিবার-পরিজন নিয়ে সেখানে ছুটে যাচ্ছেন।

সম্প্রতি সূর্যমুখী ফুলের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হলে কিছু দিন যাবত সেখানে উপচে পড়ছে মানুষের ভিড়। ৫০-৭০ কিলোমিটার দূর থেকেও মানুষ মাইক্রোবাস-কার, মোটরসাইকেলে করে ছুটে আসছে। দর্শনার্থীদের অনেকেই বলেন, ফেসবুকে ফুলের দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হয়ে ছবি তুলতে এসেছি। কারণ কুমিল্লার কোথাও এমন পরিবেশ নেই।মাঠজুড়ে এমন সূর্যমুখী ফুল কখনো দেখিনি। স্মৃতিতে ধরে রাখতে এখানে ছবি তুলতে এসেছি আমরা। সূর্যমুখি ফুলের চাষী ওয়ালিদ মিয়া জানান, ফুল ফোটার পর ফেসবুকে ভাইরাল হলে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। প্রতিদিন শত শত মানুষ আসছে ফটো তুলতে, এতে আমার বেশ আনন্দ লাগছে।

তিতাস উপজেলা কৃষি অফিসার সালাহউদ্দিন জানান, এ বছর আমরা তিতাসে সূর্যমুখি চাষের জন্য বীজ সরবরাহ করেছি। ২ টি ইউনিয়নে প্রায় ২ শ শতক জায়গায় সূর্যমুখির চাষ হয়েছে। ভবিষ্যতে চাষ বৃদ্ধির জন্য আরো সহযোগিতার হাত প্রসারিত করা হবে।