লাইফস্টাইল ডেস্ক: বাজারে এখন তরমুজের ছড়াছড়ি। লাল টুকটুকে রসালো এ ফলটি খেতে ছোট-বড় সবাই পছন্দ করে। শারীরিক বিভিন্ন উপকারিতাও মেলে তরমুজ থেকে। ভিটামিন, মিনারেল, খনিজ পদার্থ সবই থাকে তরমুজে। এতে আছে পটাশিয়াম ও লাইকোপিনের মতো শক্তিশালী সব খনিজ উপাদান।
একাধিক স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে তরমুজে। পেশির ব্যথা দূর করা থেকে শুরু করে হৃদরোগের সমস্যা সমাধান এমনকি ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও লড়াই করে তরমুজে থাকা পুষ্টিগুণ। বিশেষ করে গর্ভবতী নারীদেরকে তরুমুজ খাওয়ার জন্য বিশেষভাবে পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

কারণ এতে রয়েছে অনেকে পানি। যা গর্ভাবস্থায় ফোলা ভাব ও বিভিন্ন অসুস্থতা থেকে মুক্তি দেয়। এমনকি তরমুজের বীজেও আছে নানা স্বাস্থ্য উপকারিতা।

তবে মনে রাখবেন, সঠিক উপায়ে ও সময়ে তরমুজ না খেলে ঘটতে পারে শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা।
যেমন- রাতে যদি আপনি তরমুজ খেয়ে থাকেন; তাহলে পেট ব্যথা থেকে শুরু করে নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে-

  • সন্ধ্যার পর থেকে শরীরের হজমব্যবস্থা কমে যায়। এজন্যই ডিনারে হালকা খাবার রাখতে বলা হয়।
    তরমুজে অনেক পানি এবং প্রাকৃতিক অ্যাসিড থাকে, যা হজমের ক্ষেত্রে পেটে ব্যথা বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার কারণ হতে পারে।
  • তরমুজে অনেক প্রাকৃতিক চিনি রয়েছে। যদিও শরীরের জন্য এটি ভালো; তবে রাতে মিষ্টিজাতীয় খাবার পরিহার করা উচিত।
    এতে ওজন বাড়তে পারে।
  • তরমুজে ৯২ শতাংশ পর্যন্ত পানি থাকে। তাই রাতে তরমুজ খেলে, বারবার টয়লেটে যেতে হতে পারে আপনাকে।

এ ছাড়াও পেটে ফোলা ভাব হতে পারে।

  • রাতে তরমুজ খেলে ঘুমের ব্যঘাত ঘটতে পারে।

উপরোক্ত সমস্যাগুলো দেখা দিলে রাতে আপনি ঠিকভাবে ঘুমাতে পারবেন না।

তাহলে তরমুজ খাবেন কখন?

  • দিনের যেকোনো সময় আপনি তরুমজ খেতে পারেন।

তবে একসঙ্গে বেশি না খেয়ে বরং অল্প অল্প করে কয়েকবার কয়েক টুকরো তরমুজ খেতে পারেন।

  • সবচেয়ে ভালো হয় সকালের নাস্তায় যদি আপনি তরমুজ খেতে পারে।

তহলে শরীর অ্যানার্জিও পাবে, আর আপনি থাকবেন ফুরফুরে।

  • মনে রাখবেন,

তরমুজ খাওয়ার ৩০-৪৫ মিনিটের মধ্যে পানি পান করা থেকে বিরত থাকবেন।

আপনার মতামত দিন