শেখ শোভন আহমেদ, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

রেলম‌ন্ত্রীর আ‌ত্মীয়‌দের বিনা টি‌কি‌টে ভ্রম‌নের সময় আইন অনুযায়ী জ‌রিমানা আদায় করা ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরীক্ষক (টিটিই) শফিকুল ইসলাম ইসলামী বিশ্ব‌বিদ্যালয় থেকে আইন বিভাগ-এ মাস্টার্স করেছেন। তিনি ‌বিশ্ব‌বিদ্যালয়ে পড়াকালীন সম‌য়েই রেলও‌য়ে‌তে চাকুরী পান। প‌রব‌র্তিতে চাকুরীরত অব‌স্থায় মাস্টার্স পাশ ক‌রেন।
মেধাবী শফিকুল ক্লাস সিক্স থে‌কেই এলাকায় টিউশ‌নি ক‌রে লেখাপড়ার খরচ ও সংসা‌র চালাতেন। তাঁর বা‌ড়ি ঝিনাইদ‌হের শৈলকুপা উপ‌জেলার সারু‌টিয়া গ্রা‌মে। সেখানে রয়েছে একটি টি‌নের ঘর যার ভিটা মা‌টির। তিন কক্ষ বি‌শিষ্ট এ ঘ‌রেই থা‌কেন তাঁর মা, বাবা ও দাদী। শুধুমাত্র বাড়ীর ১০ শতক জ‌মিই তাঁর সম্বল। ইতঃপূর্বে তাঁর বাবা রজব আলী অন্যের জমি বর্গায় চাষ করে সংসার চালাতেন। শফিকুলের সততার কথা গ্রামবাসীর মু‌খে মু‌খে। এককথায় তিনি তাঁর এলাকায় আদর্শ ছেলের উদাহরণ।
ম‌ন্ত্রীর আ‌ত্মীয়‌দের বিনাটি‌কি‌টে রেলে ভ্রম‌নের কালে আইন অনুযায়ী জ‌রিমানা আদায় করার কারণে শফিকুলকে তাঁর চাকুরী থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। অতঃপর মিডিয়াতে বিষয়টি প্রচার হলে তাঁকে তড়িঘড়ি করে পূনঃবহাল করা হয়েছে।

আমজনতার মতে, তাকে পুরস্কৃত করা উচিত কারণ সে তার নিজের দায়িত্ব কর্তব্য পালন করতে পিছপা হননি সে সততার সাথে তার দায়িত্ব পালন করেছেন।

আপনার মতামত দিন